শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতি

বেনাপোলে লক্ষাধিক টাকার সরকারি বই বিক্রির অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোরের বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সরকারি বই বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। যেখানে আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে আগামী ২০২৩ সালে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে সময়মতো নতুন বই পৌছাবে কিনা? যে কারণে অধিকাংশ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণ বিদ্যালয়ে যে সকল পুরানো বই আছে সেগুলো সংরক্ষণের চেষ্টা করছেন। সেখানে ব্যতিক্রম ঐতিহ্যবাহী বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেখ সিরাজুল ইসলাম।
তিনি বই সংরক্ষণ না করে স্কুল গোডাউনে রাখা লক্ষাধিক টাকার সরকারি বই রাতের আধারে স্কুলের দুইজন অস্থায়ী শিক্ষক ও দুইজন কর্মচারীকে সাথে নিয়ে বিক্রি করে দিয়েছেন। এর আগেও তিনি এ রকম ঘটনা ঘটিয়েছেন। এছাড়াওওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষক-কর্মচারীসহ অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রীদের সাথে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে।

সংশ্লিস্ট সূত্রে জানা যায়, গত ৬ নভেম্বর বিদ্যালয় ছুটির কিছুক্ষণ পরে প্রধান শিক্ষক পুনরায় স্কুলে ফিরে আসেন। এ সময় তার সাথে স্কুলের দুই জন অস্থায়ী শিক্ষক এবং দুইজন কর্মচারী ছিল। কিছুক্ষণ পরে একটি বড় পিকআপসহ আরো কিছু লোক স্কুলে প্রবেশ করেন। প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে কর্মচারীগণ বিদ্যালয় আঙিনার সকল বিদ্যুৎ লাইট অফ করে দিয়ে গোডাউনে ঢুকে সেখানে রাখা সকল বই পিকআপে তুলে দেয়। যার আনুমানিক মূল্য লক্ষাধিক টাকা।

বিষয়টি এতদিন গোপন থাকলেও আজ বুধবার (২৩ নভেম্বর) স্কুলের জনৈক শিক্ষক ওই গোডাউনের চাবি চাইলে প্রধান শিক্ষক টালবাহানা শুরু করেন। এক পর্যায়ে উক্ত শিক্ষককে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালি করাসহ মারতে উদ্যোত হন। পরে অন্যান্য শিক্ষকগণ বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে চাবি নিয়ে গোডাউন খুলে দেখে সেখানে কোন বই নেই। বিষয়টি কানাকানি হতে হতে কর্মচারীগণ চাপে পড়ে বই বিক্রির ঘটনাটি অন্যান্য শিক্ষকদের কাছে স্বীকার করে।

বিদ্যালয়ের জনৈক শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ওই গোডাউনে ২০২২ সালের নতুন বই, সংযুক্ত ভোকেশনাল শাখার অনেক বই সংরক্ষিত ছিল। গত বছরও প্রধান শিক্ষক একই ভাবে বই বিক্রি করে দেন। পরে শিক্ষকদের কাছে তিনি ক্ষমা চাইলে, শিক্ষকরা এ ব্যাপারটি চেপে গিয়েছিলেন। তিনি আরো বলেন, প্রতিবছর প্রধান শিক্ষক প্রয়োজনের চেয়ে বেশি বইয়ের চাহিদা দিয়ে গোপনে বই বিক্রি করেন। এছাড়াও প্রধান শিক্ষক প্রতিনিয়ত শিক্ষক-কর্মচারীদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন এবং ভাষায় প্রকাশের অযোগ্য গালাগালি করেন।

বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আহসানুল কবির তুহিন বলেন, তিনি ঘটনার দিন অফিসিয়াল কাজে খুলনা ডিডি অফিসে গিয়েছিলেন। সে কারনে তিনি কিছু জানেন না। প্রধান শিক্ষকও তাকে এ বিষয়ে কিছু জানাননি।

বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আলহাজ¦ এনামুল হক মুকুল এ বিষয়ে কিছু জানেন না। সাংবাদিকদের মাধ্যমে বিষয়টি জেনেছি। তদন্ত করে এ ব্যাপারে সত্যতা পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ বিষয়ে শার্শা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন, বিদ্যালয়ের সরকারি বই বিক্রির কোন আইন নেই। অভিযোগ পেলে তিনি ব্যবস্থা নিবেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নারায়ন চন্দ্র পাল জানান, একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক এভাবে বই বিক্রি করতে পারেন না। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরো খবর »

প্রাথমিকের বৃত্তি পরীক্ষা ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে

উজ্জ্বল হোসাইন

কুদরাত-এ-খুদা বাংলাদেশের শিক্ষা-বিজ্ঞান আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা

উজ্জ্বল হোসাইন

অনুগল্প : নিশির ডাক

উজ্জ্বল হোসাইন