কর্পোরেট সংবাদ

বাংলাদেশে সপ্তম বারের মত “রিং দ্যা বেল ফর জেন্ডার ইক্যুয়ালিটি” অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (আইএফসি) আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ, ইউএন ওমেন এবং ইউনাইটেড ন্যাশনাল গ্লোবাল কমপ্যাক্ট এর সাথে অংশীদারীত্বের ভিত্তিতে ১৪ মার্চ, ২০২২ তারিখে সপ্তমবারের মত “রিং দ্যা বেল ফর জেন্ডার ইক্যুয়ালিটি” শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠানে ভবিষ্যৎ গঠনে নারীর ভূমিকার উপর জোর দেয়ার পাশাপাশি কিভাবে অর্থনীতিতে নারীদের বৃহত্তর অংশগ্রহণে টেকসই এবং অন্তর্ভূক্তিমূলক প্রবৃদ্ধিকে উৎসাহিত করা যায় তা তুলে ধরা হয়।

কোভিড ১৯ এর প্রভাব থাকা সত্ত্বেও নতুন পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যে, তালিকাভুক্ত কোম্পানিতে স্বাধীন নারী পরিচালকের হার শতকরা ৫-৬ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। ২০২০ সালের আইএফআইসি-ডিএসই এর একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে সে সময়ে তালিকাভুক্ত কোম্পানীসমূহের বোর্ড পরিচালকের প্রায় ১৮ শতাংশই ছিলেন নারী, যা একই রয়ে গেছে। তালিকাভুক্ত কোম্পানিসমূহের পরিচালনা পর্ষদে নারীদের অংশগ্রহণ বিবেচনায় দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে বাংলাদেশ এখনও শীর্ষে অবস্থানে রয়েছে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত এইচ. ই. মিসেস নাথালি চুয়ার্ড বলেন, “বাংলাদেশ এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে স্নাতক হওয়ার পথে, একটি টেকসই পরিবর্তনের জন্য লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ। একটি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং দীর্ঘস্থায়ী দ্বিপাক্ষিক অংশীদার হিসেবে, সুইজারল্যান্ড বাংলাদেশে তার সমস্ত কর্মকান্ডে লিঙ্গ সমতা এবং সামাজিক অর্ন্তভূক্তিকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়।”
স্বাগত বক্তব্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আমিন ভূইয়া বলেন, লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণে এবং নেতৃত্বে নারীদের অংশগ্রহণ বাড়াতে ডিএসই সব সময় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, ডিএসই’র মতো কোম্পানিতে নারীদের ভূমিকার শুধুমাত্র বৈচিত্রময় নেতৃত্ব তৈরী করবে না বরং বেসরকারি খাতের কোম্পানিগুলোকে আরও শক্তিশালী মূল্যবোধ তৈরি, নতুন ধারণা আনয়নে, স্বচ্ছতা বৃদ্ধি এবং অন্তর্ভূক্তিমূলক প্রবৃদ্ধিতেও সহায়তা করবে।

এই বছরের প্রচারাভিযানটি হলো # ব্রেক দ্যা বায়াস হ্যাশট্যগের প্রতিনিধিত্ব করছে। এটি এমন একটি বিশ্বের দিকে কাজ করার জন্য আমাদের মতো লোকদের প্রতি আহবান জানানো হচ্ছে যা ন্যায়সঙ্গত, অন্তর্ভূক্তিমূলক এবং পক্ষপাত ও বৈষম্য থেকে মুক্ত, যাতে নারীদের এগিয়ে চলার জন্য সমান সুযোগ তৈরীতে বদ্ধপরিকর।

সমাপনী বক্তব্যে ডিএসই চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুসুর রহমান বলেন, নারীর ক্ষমতায়নের নীতি সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য গত আট বছর ধরে প্রত্যেক বছর সারা বিশ্বের স্টক এক্সচেঞ্জগুলো ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপনে ঘণ্টা বাজানোর অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে। আমি বিশ্বাস করি যে এটি বেসরকারি খাত একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে এবং জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনের জন্য বিশ্বব্যাপী লিঙ্গ সমতাকে শক্তিশালী করছে। আমরা জানি যে এই বছরের নারী দিবসের থিম হল “টেকসই আগামীকালের জন্য আজ লিঙ্গ সমতা” যার লক্ষ্য হল সেই নারীদের স্বীকৃতি দেওয়া যারা আরও টেকসই ভবিষ্যত গড়ার জন্য কাজ করছে। এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে ‘টেকসই উন্নয়ন’ নির্ভর করে নারী ও পুরুষের জন্য সম্পদের সুষম বণ্টনের ওপর। সুতরাং, আমরা বুঝতে পারি যে লিঙ্গ সমতা ছাড়া টেকসই উন্নয়ন সম্ভব নয়। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, সামাজিক উন্নয়ন এবং পরিবেশগত টেকসইতা অর্জনের জন্য নারীর ক্ষমতায়ন একটি মূল বিষয়। তিনি আরও বলেন, দেশের পুঁজিবাজারে নারী বিনিয়োগকারীদের ঢল দেখা যাচ্ছে যারা জাতীয় অর্থনীতিতে তাদের অবদান বাড়িয়ে চলেছে। আধুনিক প্রযুক্তি শেয়ার বাজারে তাদের অগ্রযাত্রাকে আরও সহজ করেছে, তাদের অনেককে তাদের কম্পিউটার বা স্মার্টফোনের মাধ্যমে ঘরে বসেও বাজারের গতিবিধি সম্পর্কে ধারণা রাখতে সাহায্য করছে। পরিশেষে, আমি বলব যে বাংলাদেশ গত দেড় দশকে লিঙ্গ বৈষম্য বন্ধ করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। বাংলাদেশ এমন কয়েকটি দেশের মধ্যে রয়েছে যারা নারী কর্মসংস্থাান বৃদ্ধি করেছে এবং একই সাথে পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে মজুরি ব্যবধান উল্লেখযোগ্যভাবে কমিয়েছে।
গীতাঞ্জলি সিং, হেড অফ অফিস, ইউএন উইমেন বাংলাদেশ বলেন, “মহিলাদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে বিনিয়োগ করা সঠিক এবং স্মার্ট উভয়ই, কারণ এটি লিঙ্গ সমতা, দারিদ্র দূরীকরণ এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দিকে একটি প্রত্যক্ষ পথ নির্ধারণ করে।”

প্রতিবেদনটি লিঙ্গ-প্রতিক্রিয়াশীল কর্ম পরিকল্পনা বাস্তবায়নের দিকনির্দেশনা প্রদান করে, যেমন লিঙ্গ-কেন্দ্রিক আর্থিক উপকরণের তালিকাকে সমর্থন করা, বোর্ড এবং সিনিয়র ব্যবস্থাপনায় লিঙ্গ সমতার প্রতিবন্ধকতাগুলিকে মোকাবেলা করা, পরিবেশগত, সম্প্রসারণ সামাজিক, এবং শাসনের মাধ্যমে লিঙ্গ কর্মক্ষমতার উপর স্বচ্ছতা বৃদ্ধি এবং তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলির জন্য লিঙ্গ লক্ষ্য নির্ধারণ করা ইত্যাদি।

রিং দ্যা বেল উদ্যোগের প্রতি আইএফসি-এর প্রতিশ্রুতি লিঙ্গ সমতার উপর তার দৃঢ় কেন্দ্রবিন্দুর অংশ, যার মধ্যে রয়েছে মহিলা উদ্যোক্তাদের জন্য অর্থের অভিগমণ প্রসারিত করতে এবং নেতৃত্বের ভূমিকায় মহিলাদের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির সাথে সম্পর্ককে কাজে লাগানো।

আইএফসি বাংলাদেশ, ভুটান এবং নেপাল এর কান্ট্রি ম্যানেজার মার্টিন হোল্টম্যান বলেন, “আইএফসি দীর্ঘদিন ধরে পুঁজিবাজার পর্যায়ে নারীদের অর্থনৈতিক পথ প্রদর্শক হিসেবে সমর্থন করার প্রচেষ্টায় নিয়োজিত রয়েছে। আমরা ভালভাবে জানি যে নেতৃত্বের পদে আরও বেশি মহিলা থাকা কোম্পানিগুলির জন্য অর্থনৈতিক বোধগম্য করে এবং আরও ভাল পরিবেশগত, সামাজিক এবং কর্পোরেট শাসনের মান এবং অনুশীলনের সাথে যুক্ত। এজন্য আইএফসি বাংলাদেশের স্টক এক্সচেঞ্জ, নিয়ন্ত্রক এবং কোম্পানি সহ একাধিক স্টেকহোল্ডারদের সাথে কাজ করছে।”

মার্চ ২০২২ এর শুরুতে, আইএফসি এবং সুইস স্টেট সেক্রেটারিয়েট ফর ইকোনমিক অ্যাফেয়ার্স (এসইসিও)ও একটি নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে যাতে বাংলাদেশকে উন্নত পরিবেশগত এবং সামাজিক ও শাসন (ইএসজি) অনুশীলনের মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশগুলিতে বেসরকারি খাতের বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে অন্তর্ভুক্ত করে।

নারী দিবসের অনুষ্ঠানে ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে পরিচালনা পর্ষদে লিঙ্গ বৈচিত্রতা বিষয়ে একটি প্যানেল আলোচনা অন্তর্ভুক্ত ছিল। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ছিলেন জারিন মাহমুদ হোসেইন, এফসিএ, পার্টনার স্নেহাশিস মাহমুদ অ্যান্ড কোং, মেলিটা মেহজাবীন, সহযোগী, অধ্যাপক, আইবিএ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং শামারুখ ফখরুদ্দিন, পরিচালক, উর্মি গ্রুপ। আলোচনা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন গ্লে¬াবাল কমপ্যাক্ট নেটওয়ার্ক বাংলাদেশের (জিসিএনবি) নির্বাহী পরিচালক শাহমিন জামান। টেকসই স্টক এক্সচেঞ্জ, আইএফসি, ইউএন উইমেন, ইউএন গ্লে¬াবাল কমপ্যাক্টের সাথে বৈশ্বিক অংশীদারিত্ব লিঙ্গ সমতার জন্য ২০১৫ সালে শুরু হয়েছিল এবং এই বছর ১২০টিরও বেশি স্টক এক্সচেঞ্জ লিঙ্গ সমতার জন্য সচেতনতা বাড়াতে সারা বিশ্বে ইভেন্টে অংশ নিচ্ছে।

আরো খবর »

আইসিএবি ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড পেল ২৫ প্রতিষ্ঠান

উজ্জ্বল হোসাইন

সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ১১টি নতুন উপশাখার উদ্বোধন

Tushar

ক্রেডিট কার্ডের গ্রাহতদের জন্য “মেডিকেল সেকেন্ড ওপিনিয়ন সার্ভিস” সুবিধা চালু করেছে এনসিসি ব্যাংক

উজ্জ্বল হোসাইন