ফটো গ্যালারী শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতি

রাজু ভাস্কর্যের সামনে নেচে ভাইরাল নওগাঁর মেয়ে ইরা

রহমতউল্লাহ, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি : মুবাশশীরা কামাল ইরা’ রাজু ভাস্কর্যের সামনে পাখির মতো শূন্যে উড়ছেন নৃত্যশিল্পী‘ ইউরোপীয় ব্যালে নাচের মুদ্রায় তোলা তাঁর বেশ কিছু ছবি এখন ভাইরাল নেট দুনিয়ায়। জন্মস্থান নওগাঁয়। ছবিগুলো যখন চারদিকে আলো ছড়াচ্ছে, ইরা তখন বাড়িতে বসেই মিডিয়া সামলাচ্ছেন। তবে তাঁর মা-বাবা সবকিছুর ঊর্ধ্বে মেয়েকে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে চান

জানা যায়, সম্প্রতি ইরার ছবিগুলো তোলেন ক্যানসারে আক্রান্ত নারী ফটোগ্রাফার জয়িতা আফরিন। মূলত ব্যালে নাচের ধরনে ছবিগুলো তোলা হয়। মুবাশশীরা কামাল ইরার বাড়ি নওগাঁর সদর উপজেলার বিজিবি ক্যাম্প এলাকার বটতলা মোড়ের পাশে। স্থানীয় ফার্নিচার ব্যবসায়ী আবু হায়াৎ মোহম্মদ কামালের তৃতীয় কন্যা।

জানা গেছে, ইরার অনুশীলন ও বেড়ে ওঠা নওগাঁয়। তিনি নওগাঁ সীমান্ত পাবলিক স্কুল থেকে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছেন । এখন লেখাপড়া করছেন নওগাঁ সরকারি কলেজে। প্রথমে নওগাঁয়, পরে ঢাকায় ভরতনাট্যম শিখেছেন। তবে লকডাউনের সময় ঘরে বসেই শিখতে শুরু করেন ব্যালে নৃত্য জয়িতা আফরিনমুবাশশীরা কামাল ইরা

এক সাক্ষাৎকারে আফরিনমুবাশশীরা কামাল ইরা বলেন, ‘মূলত সে একটা নৃত্য উৎসবে ঢাকায় গিয়েছিল। তারপর হঠাৎ করেই জয়িতা আপুর সাথে ছবি তোলা হয়। আর আমি যেহেতু নৃত্য করি, সেই জায়গা থেকেই এ ধরনের ছবিগুলো তোলা হয়। তারপর সেগুলো ফেসবুকে দেওয়ার পর অনেক মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি। এখন সারাক্ষণ বিভিন্ন টিভি ও পত্রিকা থেকে আমার সাথে যোগাযোগে করা হচ্ছে। ওটা নিয়েই ব্যস্ত সময় যাচ্ছে।’

ইরার স্বপ্ন – ‘ছোটবেলা থেকেই নাচের প্রতি অন্যরকমের একটা ভালোবাসা ছিল। নাচের মধ্য দিয়েই আমি কিছু করতে চাই। সামনে নাচ নিয়ে পড়াশোনা করার ইচ্ছে আসে। সেটা যদি দেশের বাইরে হয়, তাহলে তো ভালো হয়। দেশীয় সংস্কৃতির পাশাপাশি ব্যালে নাচে নতুন কিছু করার ইচ্ছেও আছে।’

ইরার মা ফাহমিদা কামাল বলেন, ‘ছোট থেকেই নাচ ভালোবাসে ইরা। নাচের প্রথম হাতেখড়ি স্থানীয় সুলতান মাহমুদের কাছে। নাচে ইরার অনেক অর্জন আছে। পড়ালেখা আর নাচের পাশাপাশি জিম, স্কেটিং, টেনিস ও ক্রিকেট খেলতে পছন্দ করে।’ তবে প্রথম দিকে ইরার নাচ নিয়ে পরিবার থেকে সহযোগিতা পাওয়া যায়নি। এখন অবশ্য সবাই তাকে সহযোগিতা করে।
ইরার বাবা আবু হায়াৎ মোহম্মদ কামাল বলেন, ‘সবকিছুর ঊর্ধ্বে ইরাকে আগে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। নাচের পাশাপাশি ভালোভাবে পড়ালেখা করার কথা বলি। আমি আশা রাখি আমার মেয়েটা সফল হবে। কারণ ওর ইচ্ছেশক্তি অনেক। মেয়েকে নিয়ে আমি অনেক আশাবাদী।’

আরো খবর »

৪৪তম বিসিএসের প্রার্থীর সংখ্যা ৫৪ দেশের জনসংখ্যার চেয়েও বেশি

দেশে পৌঁছেছে আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরীর মরদেহ

ঝিনাইদহে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের রোদে দাড় করিয়ে মানববন্ধন!

Tanvina