অর্থ-বাণিজ্য

বাংলাদেশে বাণিজ্য-বিনিয়োগ বাড়াতে চায় ইরাক

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ইরাক। বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) বাণিজ্যমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের অফিস কক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ আগ্রহ প্রকাশ করেন ঢাকায় নিযুক্ত ইরাকের রাষ্ট্রদূত আব্দুলসালাম সাদ্দাম মোহাইমসেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং সুবর্ণজয়ন্তীতে শুভেচ্ছা জানিয়ে ইরাকের রাষ্ট্রদূত বলেন, ইরাক বাংলাদেশের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে আগ্রহী। এছাড়া বাণিজ্যচুক্তি নবায়ন ও সময়োপযোগী করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। বাণিজ্য বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনার জন্য তিনি বাণিজ্যমন্ত্রীকে ইরাক সফরে আমন্ত্রণ জানান।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ইরাকের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। এজন্য উভয় দেশের সরকারি এবং ব্যবসায়ী পর্যায়ে বাণিজ্য প্রতিনিধিদল সফর বিনিময় করলে খাতগুলো চিহ্নিত করা সহজ হবে। বাণিজ্য সহজ করতে ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ ইরাকের সঙ্গে একটি বাণিজ্যচুক্তি সই করে। এতে উভয় দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং অর্থনৈতিক সহযোগিতা বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। অনেকগুলোর কাজ শেষপর্যায়ে। বিশ্বের অনেক দেশ বিনিয়োগে এগিয়ে এসেছে। ইরাকের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশের স্পেশাল ইকোনমিক জোনে বিনিয়োগ করলে লাভবান হবেন। বাংলাদেশ সরকার বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের আনুষ্ঠানিকতা সহজ করেছে এবং বেশকিছু আকর্ষণীয় সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে। বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে এসব সুযোগ-সুবিধা নিতে পারে ইরাক।

গত ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ইরাকে ৩.৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ, একই সময়ে ইরাক থেকে ৫৩.৪২ মিরিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য আমদানি করা হয়েছে। ইরাকের বাজারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, মেডিকেল পণ্য, পাটজাত পণ্য, হোম টেক্স এবং চামড়াজাত পণ্য রপ্তানির বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে।

জাতীয় ভোক্তা-অধিকার: বিভিন্ন অপরাধে ১০৬ প্রতিষ্ঠানকে ৮ লক্ষ…

আরো খবর »

ডলার সংকট ও মূল্যস্ফীতি বড় চ্যালেঞ্জ: গভর্নর ফজলে কবির

আজ ব্যাংকের কিছু শাখা খোলা

বাংলাদেশে কৃষিজাত পণ্য রপ্তানিতে গুরুত্বারোপ

Arif Hasan