Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
বিনোদন

অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ গ্রেফতার

বিনোদন ডেস্ক : কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও তৃণমূল নেত্রী সায়নী ঘোষকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রোববার (২১ নভেম্বর) সকাল থেকে সায়নীকে বসিয়ে রেখে বিকেল চারটে নাগাদ আগরতলা পূর্ব থানা থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, গ্রেফতার করা হয়েছে সায়নী ঘোষকে। মেডিক্যাল টেস্টের জন্য তাঁকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

কী অভিযোগ সায়নীর বিরুদ্ধে? তৃণমূল নেত্রী সুস্মিতা দেবের দাবি, পুলিশের দাবি মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের সভার পাস দিয়ে যাওয়ার সময় জোরে গাড়ি চালিয়ে মানুষকে মারার চেষ্টা করেছিলেন।

সুস্মিতা দেব আরও বলেন, জোরে গাড়ি চালিয়ে মানুষ মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিলেন সায়নী, এটা কেউ বিশ্বাস করবে না। পুরোটাই মিথ্য়ে। আমাদের ভয় দেখানোর জন্য এটা করা হয়েছে। এছাড়াও কাল অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আসছেন। তাঁর কর্মসূচি নষ্ট করার জন্য এসব করা হয়েছে। ওরা যতই এই ধরনের মিথ্যে মামলা করুক আমরা যে লড়াইয়ের জন্য এসেছি তা ছাড়ব না। কাল যখন ওকে আদালতে তোলা হবে তখন আমরা জামিনের জন্য আবেদন করব। আমরা আপাতত থানার ভেতরেই রয়েছি। কারণ থানার মধ্যে ঢুকে বিজেপি কর্মীরা আমাদের সমর্থকদের মেরেছে। তাই সায়নী যতক্ষণ পুলিশের হেফাজতে থাকবে ততক্ষণ আমরা থানা ছাড়ব না। কারণ সায়নী নিরাপদ নয়।

উল্লেখ্য, রবিবার সকালেই আগরতলায় সায়নীদের হোটেলে আসে পুলিশ। তাদের অভিযোগ, একজনকে ধাক্কা মেরেছে সায়নী ঘোষের গাড়ি। এছাড়াও মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কুরুচিকর মন্তব্যের অভিযোগ রয়েছে সায়নীর বিরুদ্ধে। তাই সায়নীকে থানায় যেতে হবে। কুণাল ঘোষ পুলিসকে বাধা দিয়ে বলেন,কোনও মহিলাকে এইভাবে বিনা নোটিশে তুলে নিয়ে যাওয়া যায় না। পুলিশ সেই নোটিশ দেখাতে না পারায় কুণাল জানিয়ে দেন যে সায়নীকে নিয়ে পরে থানায় যাবেন তৃণমূল নেতৃত্ব।

থানার যাওয়ার পরই সেখানে বিজেপি ও তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে মারামারি বেধে যায়। তৃণমূলের তরফে অভিযোগ করা হয়েছে কিছুক্ষণ আগেই মাথায় হেলমেট পরে বিজেপি কর্মীরা জড়ো হয়েছে পূর্ব আগরতলা থানার বাইরে। দুই দলের মধ্যে খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে গেলে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের গাড়ি ভাংচুর করা হয় বলে অভিযোগ।

জানা গেছে, গুরুতর আহত হয়েছেন নির্মল শর্মা, প্রবীর বৈদ্য, আল্পনা দেব বর্মা এবং রাজেশ সাহা। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপি নেতা নবেন্দু ভট্টাচার্য জানিয়েছেন থানার বাইরে সাধারণ মানুষ জড়ো হয়েছেন।

সায়নীর গ্রেফতার নিয়ে তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষ বলেন, আগামিকাল অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা রয়েছে। সেই সভা বানচাল করার জন্য পরিকল্পনামাফিক এসব করা হয়েছে। সকালে হোটেলে গিয়ে সায়নীকে থানায় যেতে বলে পুলিস। আমরা এফআইআর দেখতে চাই। তার পরেও একজন নাগরিক হিসেবে থানায় আসেন সায়নী। আমরা ওঁর সঙ্গে ছিলাম। থানায় যখন সায়নীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে তখন বিজেপি কর্মীরা থানায় চড়াও হয়। ইট, রড, লাঠি দিয়ে মারধর করা হয়। পুলিস বাধা দেয়নি। বিকেলে সায়নীকে গ্রেফতার করা হয়ে। কিন্তু কোর্টে পাঠানো হচ্ছে না। যারা থানায় তাণ্ডব করল তাদের গ্রেফতার করা হল না, আর সায়নীকে গ্রেফতার করা হল। সূত্র-জিনিউজ।

আরো খবর »

ইসরায়েলে মিস ইউনিভার্স ২০২১ প্রতিযোগিতার বিচারক উর্বশী

উজ্জ্বল হোসাইন

আমার দোষ ছিল না, শুধু পরিস্থিতির শিকার: ভিডিও বার্তায় মাহি

উজ্জ্বল হোসাইন

প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে মাহির ভাইরাল ফোনালাপ নিয়ে যা বললেন ইমন

উজ্জ্বল হোসাইন