Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
জাতীয় শিরোনাম

পায়রা সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : পটুয়াখালীর লেবুখালীতে পায়রা নদীর ওপর নির্মিত পায়রা সেতুর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পরই সেতুটি যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়।

রোববার (২৪ অক্টোবর) সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কর্ণফুলী সেতুর আদলে নির্মিত দৃষ্টিনন্দন এই সেতুটি উদ্বোধন করেন তিনি।

এদিকে, পটুয়াখালীর মানুষের স্বপ্নের ‘পায়রা সেতু’ উদ্বোধনকে ঘিরে আজ ভোর থেকেই সেতু এলাকায় উৎসবের আমেজ বইছিলো। শত শত লোক সেতুর দুই প্রান্তে অবস্থান করছেন এখনও। নানান রঙে সাজানো হয় সেতুটিকে এবং সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হয়ে উঠে কর্ণফুলী সেতুর আদলে নির্মিত দৃষ্টিনন্দন এই পায়রা সেতুটি। উদ্বোধন উপলক্ষে পটুয়াখালীর দুমকি উপজেলার লেবুখালী সেতু এলাকায় আয়োজন করা হয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের।

একসময় সড়কপথে ঢাকা থেকে কুয়াকাটা যেতে ১০টি নদীতে ফেরি পার হয়ে যেতে হতো। শেষ পর্যন্ত পদ্মা ও পায়রা- এই দুটি নদীতে ফেরি পার হতে হতো। তবে, আজ থেকে আর পায়রার ঘাটে এসে অপেক্ষা করতে হবে না। চেয়ে থাকতে হবে না ফেরির দিকে।

টোল পূনঃনির্ধারণ না করেই কাল উদ্বোধন হচ্ছে পায়রা সেতু টোল পূনঃনির্ধারণ না  করেই কাল উদ্বোধন হচ্ছে পায়রা সেতু

জানা গেছে, ঢাকা-বরিশাল-পটুয়াখালী সড়কের দুমকি উপজেলার লেবুখালী এলাকার পায়রা নদীর ওপর নির্মাণ করা হয়েছে এই পায়রা সেতু। সেতুটি চালু হওয়ার মধ্য দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগের নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

ঢাকা থেকে পটুয়াখালীর কুয়াকাটা যেতে একসময় ১০টি জায়গায় নদী পার হতে হতো ফেরিতে। বরিশাল থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত ছিল ছয়টি ফেরি পারাপারের পথ। আর ঢাকা থেকে মাওয়া হয়ে বরিশাল পর্যন্ত ছিল চারটি ফেরি পারাপারের পথ।

সব জায়গায় সেতু হওয়ার পর বাকি ছিল শুধু লেবুখালী ও পদ্মা। লেবুখালীতে আজ সেতু উদ্বোধন হচ্ছে। এদিকে পদ্মা সেতুর কাজ শেষের পর্যায়ে। আগামী জুনের মধ্যে পদ্মা সেতুও যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়ার চিন্তা করছে সরকার।

পরিবহন খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, পদ্মা সেতু চালু হলে ঢাকা থেকে কুয়াকাটা যেতেও আর কোনও ফেরি পারাপারের প্রয়োজন পড়বে না। এতে ঢাকা থেকে কুয়াকাটা যেতে সময় লাগবে মাত্র ছয় থেকে সাত ঘণ্টা।

লেবুখালীর পর পদ্মা সেতুও চালু হলে কুয়াকাটায় পর্যটকের সংখ্যা আরও বাড়বে, পায়রা বন্দরের গুরুত্ব বেড়ে যাবে এবং ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়বে বলে আশা করছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

প্রতিক্ষার পায়রা সেতু'র দ্বার উন্মোচনের অপেক্ষা

কক্সবাজারের পর দেশের বড় সমুদ্রসৈকত কুয়াকাটা। শুধু পর্যটন সম্ভাবনা নয়, সেখানে শিল্পায়নের পরিকল্পনাও রয়েছে সরকারের। অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কাজ চলছে। পায়রায় তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র হয়েছে। পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় শেরেবাংলা ত্রিমাত্রিক নৌঘাঁটির কাজ চলছে। কুয়াকাটায় পর্যটন খাতে নতুন নতুন বিনিয়োগ হচ্ছে।

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর ওপর শাহ আমানত সেতুর আদলে নান্দনিক নকশায় নির্মাণ করা হয়েছে পায়রা সেতু। চার লেনের এই সেতুর দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৪৭০ মিটার, প্রস্থ ১৯ দশমিক ৭৬ মিটার। ২০১২ সালে পায়রা সেতু নির্মাণ প্রকল্পের অনুমোদন দেয় সরকার। ২০১৩ সালে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়।

শুরুতে সেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছিল প্রায় ৪১৩ কোটি টাকা। পরে নকশা পরিবর্তন করে ব্যয় ধরা হয় ১ হাজার ১৭০ কোটি টাকা। তবে সেতুটি নির্মাণে খরচ হয়েছে মোট ১ হাজার ১১৮ কোটি টাকা।

২৪ অক্টোবর পায়রা সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী | প্রথম আলো

টোলহার : এই সেতুতে রিকশা, ঠেলাগাড়ি, ভ্যান, সাইকেল থেকে শুরু করে বাস, ট্রাক ও কনটেইনারবাহী লরিও চলবে। যানভেদে নির্ধারণ করা হয়েছে টোলের হার।

সবচেয়ে বেশি টোল দিতে হবে কনটেইনারবাহী লরিকে, ৯৪০ টাকা। ভারী ট্রাক ৭৫০ টাকা, মাঝারি ট্রাক ৩৭৫, বড় বাস ৩৪০, ছোট ট্রাক ২৮০, ট্রাক্টর ২২৫, মিনিবাস ১৯০, মাইক্রোবাস ১৫০, পিকআপ ১৫০, প্রাইভেট কার ৯৫, অটোরিকশা ৪০, মোটরসাইকেল ২০ টাকা। রিকশা, ভ্যান, সাইকেল, ঠেলাগাড়ির জন্য টোল দিতে হবে ১০ টাকা করে।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের টোল ও এক্সেল শাখা থেকে টোলের হার নির্ধারণ করা হয়েছে।

আরো খবর »

কোভিড মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টার ওপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর

উজ্জ্বল হোসাইন

ডা. মুরাদকে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার

উজ্জ্বল হোসাইন

করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৯১

উজ্জ্বল হোসাইন