27 C
Dhaka
জুন ১৪, ২০২১
Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
আইন-আদালত সারাদেশ-টুকিটাকি

চুয়াডাঙ্গায় মৃত ব্যক্তির নামে মামলা করে বিপাকে বিজিবি কর্মকর্তা

আহসান আলম, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আকন্দবাড়িয়া গ্রামের কৃষক শরিফ উদ্দিন। গত ২৫ বছর আগে পারিবারিক কলহের কারণে বিষপানে আত্মহত্যা করেন তিনি। সম্প্রতি তাকে পলাতক আসামী দেখিয়ে একটি মাদকের মামলা দায়ের করেছে বিজিবি।

শনিবার (৮ মে) বিকেলে মামলাটি তদন্ত করতে গিয়ে বিষয়টি জানতে পারেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দর্শনার থানার উপ-পরিদর্শক হারুন অর রশিদ। মৃত ব্যক্তির নামে মামলা করে এখন বিপাকে পড়েছেন মামলার বাদী উথলী বিজিবি বিশেষ ক্যাম্পের কমান্ডার নায়েব সুবেদার নুরুল হক। বর্তমানে তাকে দর্শনা নিমতলা বিজিবি ক্যাম্পে বদলি করা হয়েছে।

মামালার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ এপ্রিল রাত পৌনে ১১টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আকন্দবাড়িয়া গ্রামে মাদক বিরোধী অভিযান চালান উথলী বিজিবি বিশেষ ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার নুরুল হক। এসময় ৬ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক করা হয় ওই গ্রামের মৃত শরিফুল উদ্দিনের স্ত্রী বিলু বেগম (৪৫), ছেলে উজ্জল মিয়া (২৭) ও রমজান মণ্ডলের ছেলে নিজাম উদ্দিনকে (৫২)। এ ঘটনায় নায়েক সুবেদার নুরুল হক বাদী হয়ে পরদিন সকাল সোয়া ১০টার দিকে আটকৃত তিনজনকে দর্শনা থানায় সোপর্দ করে একটি মাদক মামলা দায়ের করেন। এতে পলাতক আসামী দেখানো হয় একই গ্রামের নিজাম উদ্দিনের ছেলে আকাশ আলী (২৬), বাতাস আলী (২২), আবদার আলীর ছেলে বিপুল (৩৫), আশকার আলীর ছেলে লিটন (৪০), মিজানুর রহমানের স্ত্রী সবুরা বেগম (৪০) ও গাইদঘাট গ্রামের মৃত রমজান মণ্ডলের ছেলে শরিফ উদ্দিনকে (৫০)।

পরে আসামী পক্ষের লোকজন আদালত থেকে মামলার কপি সংগ্রহ করে দেখতে পান ওই মামলায় ৯নং পলাতক আসামী করা হয়েছে শরিফুল ইসলামকে। যিনি ২৫ বছর আগে পারিবারিক কলহের কারণে বিষপানে মারা গেছেন।

বিকেলে মামলাটি তদন্ত করতে যান মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা দর্শনা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন অর রশিদ। তিনি বলেন, প্রাথমিক তদন্তে গিয়ে জানতে পারি মামলাটির ৯নং পলাতক আসামী শরিফ উদ্দিন অনেক আগেই মারা গেছেন।

মৃত শরিফুল ইসলামের শ্যালক নিজাম উদ্দিন জানান, শরিফ উদ্দিন কৃষি কাজ করতেন। তিনি আগে সদর উপজেলার গাইদঘাট গ্রামে থাকতেন। কিন্তু পরে আকন্দবাড়িয়া গ্রামে চলে আসেন। পারিবারিক কলহের কারণে ২৫ বছর আগে আত্মহত্যা করেন তিনি। মৃত ব্যক্তিকে মামলার আসামী করা এক ধরণের মূর্খতার পরিচয়।

এ বিষয়ে মামলার বাদী দর্শনার নিমতলা বিজিবি ক্যাম্পের নায়েব সুবেদার নুরুল হক জানান, আমি শরিফ উদ্দিনকে আগে থেকে চিনতাম না। আটককৃত আসামীদের কাছ থেকে পলাতক আসামীদের তথ্য নেয়া হয়েছিল। যা মামলার এজহারে উল্লেখ করা হয়েছে। তাদের দেয়া ভুল তথ্যের কারণে এমন ত্রুটি হয়েছে।


আরো খবর »

খুলনায় মাদক বিক্রেতা ও জুয়াড়িসহ গ্রেফতার ২০

উজ্জ্বল

গাজীপুরে পোশাক কারখানায় খোলা বাজারে খাদ্য সামগ্রী বিক্রি শুরু

উজ্জ্বল

খুলনায় মলা মাছ চাষ করে স্বাবলম্বী হচ্ছে মৎস্য চাষীরা

উজ্জ্বল