27 C
Dhaka
জুন ১৪, ২০২১
Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
আর্কাইভ কর্পোরেট সংবাদ

অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান হার বৃদ্ধির লক্ষ্যে এনার্জিপ্যাকের ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিবেদক : এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড (ইপিজিএল) শনিবার (৮ই মে) এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ভার্চুয়ালভাবে গাজীপুরের শ্রীপুরে অবস্থিত এনার্জিপ্যাক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক উদ্বোধন করেছে। এ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাবে এবং অর্থনীতির বিকাশ সাধন করবে।

স্টিলপ্যাক, গ্ল্যাড এবং জেএসি’র মতো একাধিক ইপিজিএল পণ্য এই ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কে সংযোজন করা হবে। প্রকল্পটিতে ৫৫০ জন জনবল নিযুক্ত করা হয়েছে এবং এটি প্রায় ৫২ বিঘা জমির ওপর অবস্থিত। এই ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের উৎপাদন এবং পরিচালনা কার্যক্রম সামগ্রিকভাবে দেশের বাণিজ্যিক অটোমোটিভ, প্রি-ইঞ্জিনিয়ারিং স্টিল বিল্ডিং এবং বিদ্যুৎ খাতের প্রবৃদ্ধি ত্বরাণ্বিত করবে।

অত্যাধুনিক ‘এনার্জিপ্যাক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক’-এ রয়েছে দেড় মেগাওয়াট পর্যন্ত লোড পরীক্ষা ও গ্ল্যাড ব্র্যান্ডের বার্ষিক ৫শ’ জেনারেটর তৈরি করতে সক্ষম এমন একটি বিশ্বমানের প্ল্যান্ট । যা ভবিষ্যতে ৩ মেগাওয়াট পর্যন্ত লোড পরীক্ষা করতে পারবে এবং প্ল্যান্টটি ১ হাজার গ্ল্যাড জেনারেটর তৈরি করতে পারবে। তাছাড়া, এনার্জিপ্যাক বিশ্বমানের ইলেকট্রিক ডিবি বক্স নির্মাণ এবং বাজারজাতকরণের পরিকল্পনা করছে। পার্কটিতে জেএসি কমার্শিয়াল ভেহিকেলগুলোর জন্যও একটি অ্যাসেম্বলিং প্ল্যান্ট রয়েছে, যেখানে প্রতি বছর ১২০০ গাড়ি অ্যাসেম্বল করা যায়। এই সক্ষমতা তারা ১৫শ’তে উন্নীত করবে এবং একটি বাস অ্যাসেম্বলিং প্ল্যান্ট ও বৈদ্যুতিক বাহন তৈরির পরিকল্পনা করছে। এখানে ১৮,০০০ মেট্রিক টন বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন প্রিফেব্রিকেটেড ষ্টীল বিডিং তৈরির একটি প্ল্যান্ট রয়েছে। এছাড়াও, এনার্জিপ্যাকের প্রি-ইঞ্জিনিয়ারিং লো-কস্ট হাউজ, নাট-বল্টু, ওয়্যার মেশ এবং প্রোফাইল শিট তৈরি এবং সেগুলোর বিপণনের পরিকল্পনা রয়েছে, যা বিদ্যুৎ ও পরিবহন খাতের পাশাপাশি দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নেও ব্যাপক অবদান রাখবে।


এ ব্যাপারে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, এমপি বলেন, ‘এনার্জিপ্যাক গাজীপুরের শ্রীপুরে পরিবেশ-বান্ধব কারখানা তৈরি করেছে, এজন্য আমি অত্যন্ত আনন্দিত। এক্ষেত্রে, আমি সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। কোভিডের কারণে বিশ্বজুড়ে সকল অর্থনীতিতে বিশাল ধাক্কা এসেছে। কিন্তু আমাদের দেশ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা এসডিজি’র লক্ষ্যপূরণ সহ নানা ক্ষেত্রে সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচনে কাজ করছি। এবং এক্ষেত্রে এনার্জিপ্যাক সহ অন্যান্য উদ্যোক্তাদের অনেক অবদান রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে এনার্জিপ্যাকের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেছি এবং উন্নয়নমূলক কার্যক্রম প্রত্যক্ষ করেছি। বড় বড় দেশগুলোর সাথে প্রতিযোগিতায় গিয়ে এনার্জিপ্যাক দেশে জেনারেটর এবং বৈদ্যুতিক অন্যান্য যন্ত্রাদি তৈরি এবং রপ্তানি করছে তাতে কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হচ্ছে। এনার্জিপ্যাক স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান এবং অর্থনীতির উন্নয়নে জ্বালানি ও পরিবহন সহ অন্যান্য খাতে এনার্জিপ্যাক নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এজন্য সরকার ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই।’

এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী হুমায়ূন রশিদ এ ব্যাপারে বলেন, ‘আমরা গাজীপুরে এনার্জিপ্যাক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক উদ্বোধন করতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত। এ পার্ক আমাদের শুধুমাত্র কিছু পণ্যকে এক জায়গায় নিয়ে আসবে না, এটি স্থানীয় অবকাঠামো উন্নয়নে এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতেও আমাদের সহায়তা করবে। ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কটি অটোমোটিভ এবং ইস্পাত নির্মাণের স্থানীয় উৎপাদন শিল্পকে শক্তিশালী করতে আমাদের সাহায্য করবে।’

উৎপাদন সর্বাধিকরণে ইপিজিএল শীঘ্রই মেজানিন ফ্লোর এবং উদ্ভাবনী প্রযুক্তির পাশাপাশি স্টোরেজ সুবিধা স্থাপনের পরিকল্পনা করছে।

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, এমপি ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানটিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও, এতে অংশ নেন এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাবৃন্দ। এদের মধ্যে ছিলেন প্রতিষ্ঠানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী হুমায়ুন রশিদ, চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃ রবিউল আলম, পরিচালক এনামুল হক চৌধুরী, পরিচালক নুরুল আক্তার, পরিচালক রেজওয়ানুল কবির, স্বতন্ত্র পরিচালক মোহাম্মদ নুরুল আমিন, এবং স্বতন্ত্র পরিচালক মিকাইল শিপার।

এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড: ১৯৯৫ সাল থেকে এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড (ইপিজিএল) সব সময় ‘এনার্জি ওয়ার্কস ওয়ান্ডার্সে’ বিশ্বাস করে। তাই, বাজারের সর্বাধুনিক উদ্ভাবনী প্রযুক্তির সাহায্যে মানুষের জীবনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে প্রতিষ্ঠানটি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ইপিজিএল বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যবস্থার ঘাটতি দূর করতে এবং তাদের কর্মীদের জীবনমান উন্নীতকরণের পাশাপাশি এর গ্রাহকদের জীবনযাত্রার মান উন্নত করার লক্ষ্যে কাজ করে। এ প্রতিষ্ঠানটি কেবলমাত্র গুণগতমানের পণ্যগুলোর মাধ্যমেই নয় বরং এর পরিষেবাগুলোর সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে নিজেদের লক্ষ্য অর্জনে সচেষ্ট।

দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে, ইপিজিএল তার গ্রাহক এবং অংশীদার উভয়কেই পুরোপুরি পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং সমাধান সরবরাহ করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। যাত্রা শুরুর পর থেকেই, ইপিজিএল বাংলাদেশের বৃহত্তম পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং প্রতিষ্ঠান হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছে এবং স্থানীয় ও বৈশ্বিকভাবে সুপরিচিত উভয় প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে সম্মান ও আস্থা অর্জন করেছে। বর্তমানে, ইপিজিএল ইজি উইলসন, পারকিনস, জেসিবি, জ্যাক, গ্ল্যাড , স্টিলপ্যাক, জি-গ্যাস, জন ডিয়ার, সিমেন্স এবং আরও অনেক প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত রয়েছে।

ইপিজিএলের দুটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে – এনার্জিপ্যাক পাওয়ার ভেঞ্চার লিমিটেড এবং ইপিভি চট্টগ্রাম লিমিটেড।


আরো খবর »

সীমান্ত বন্ধের মেয়াদ বাড়ল আরও ১৬ দিন

উজ্জ্বল

এনসিসি ব্যাংকের এর সাথে আইক্লিক সলিউশন এর চুক্তি স্বাক্ষর

Tanvina

অডিটিং সফটওয়্যারের উদ্বোধন

Tanvina