26 C
Dhaka
নভেম্বর ২৪, ২০২০
Latest BD News – Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
সারাদেশ-টুকিটাকি

ভগ্নিপতিকে ভালোবেসে স্বামীকে খুন

ভগ্নিপতিকে ভালোবেসে স্বামীকে খুন

যশোর প্রতিনিধি: ভগ্নিপতিকে ভালোবেসে সাবেক স্বামী ইসরাফিল হোসেন মান্নাতকে (৪২) খুন করলো স্ত্রী শারমিন সুলতানা সুমি। পরকীয়ার এই জের ধরে পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করা হয়। হত্যাকাণ্ডে নিহতের ভগ্নিপতি শাহ আলমসহ ৭ জন অংশ নেয়। মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে মাথায় ইটের আঘাত করে তাকে হত্যা করা হয়।

হত্যাকাণ্ডের দুই দিনের মধ্যেই রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। সোমবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে নিজ দফতরে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন। এ ঘটনায় জড়িত চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত পাইপ, ইট, মোবাইল ফোন এবং মোটরসাইকেল উদ্ধার হয়েছে।

গত শুক্রবার রাতে খুন হন ইসরাফিল হোসেন মান্নাত। পরদিন সকালে মরদেহ উদ্ধার হয়। নিহত মান্নাত যশোর শহরের বকচর বিহারী কলোনি এলাকার মুক্তিযোদ্ধা বজলুর রহমানের ছেলে। খুনের ঘটনায় নিহতের মা আনোয়ারা বেগম থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

গ্রেফতার চার আসামি হল- যশোর সদর উপজেলার মাহিদিয়া গ্রামের মো. হাবিবুর রহমানের ছেলে মো. আল-আমিন (১৯), শহরের পুরাতন কসবা কাঁঠালতলা নান্টুর বাগানের আবু তাহেরের ছেলে মো. রিফাত (১৯), সুজলপুরের আব্দুর রশিদ শেখের ছেলে মো. রায়হান শেখ (২২) এবং একই গ্রামের শফিকুল ইসলাম বাবুর ছেলে মো. নয়ন হোসেন (২০)।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন জানান, নিহত ইসরাফিল হোসেন মান্নাত ও শারমিন সুলতানা সুমির সংসারে দুই সন্তান রয়েছে। তাদের এক যুগের দাম্পত্য জীবন। অপরদিকে শাহ আলমের সঙ্গে মান্নাতের ছোট বোনের বিয়ে হয়েছে দশ বছর আগে। তাদেরও তিন সন্তান রয়েছে। শহরের বকচর এলাকায় তাদের বসবাস।

এর মধ্যে শারমিন সুলতানা সুমী ও শাহ আলম পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। তিন মাস আগে সুমি তার স্বামী মান্নাতকে তালাক দেয়। এরপর শাহ আলমকে বিয়ে করে। শাহ আলম ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে ভাড়া বাসায় তোলেন সুমিকে। মান্নাত তার ডিভোর্সি স্ত্রীর সন্ধান করতে থাকেন।

একপর্যায়ে জানতে পারেন শাহ আলমকে বিয়ে করে কোটচাঁদপুরে সংসার করছে। শাহ আলম কোটচাঁদপুরের কাউন্সিলরের মাধ্যমে সেখানে সালিশ বসিয়ে শাহ আলমকে তালাক দিতে বাধ্য করে। সালিশের মাধ্যমে দেনমোহর ও খোরপোশ বাবদ শাহ আলমের কাছ থেকে দুই লাখ টাকা আদায় করা হয়।

সালিশের পর সুমি অন্য জায়গায় থাকত। মান্নাত তার স্ত্রীকে খুঁজতে থাকেন। এর মধ্যে মান্নাতকে হত্যার পরিকল্পনা করে শাহ আলম। সে তার গাড়ির ড্রাইভার আল আমিনকে দায়িত্ব দেয় মান্নাতের গতিবিধি লক্ষ্য রাখার জন্য।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় শাহ আলমের ড্রাইভার মান্নাতকে ফোন করে ডেকে নেয় শহরের কারবালা এলাকার সিঅ্যান্ডবি রোডে। মান্নাত মাথায় গামছা বেঁধে বাইসাইকেলে রওনা হয়। সেখানে পৌঁছলে ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়।

হত্যাকাণ্ডে অন্তত সাতজনের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এ ঘটনায় মূল পরিকল্পনাকারী শাহ আলম ও নিহতের স্ত্রী সুমিসহ অন্যদের গ্রেফতারে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম রব্বানী শেখ, জামাল আল নাসের, অপু সরোয়ার, সহকারী পুলিশ সুপার সোয়েব আহমেদ খান ও জুয়েল ইমরান, কোতোয়ালি থানার ওসি মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

আরও পড়ুন: 

ইরফান সেলিমের আরও একটি টর্চার সেলের সন্ধান

হাজী সেলিমের ছেলের ১ বছরের কারাদণ্ড


আরো খবর »

মির্জাগঞ্জে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে শিক্ষককে মারধরের অভিযোগ

উজ্জ্বল

মোহাম্মদপুরে বিহারী পট্টির আগুন নিয়ন্ত্রণে

উজ্জ্বল

ঝিনাইদহে ভুল অপারেশনে প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

উজ্জ্বল