28 C
Dhaka
নভেম্বর ২৪, ২০২০
Latest BD News – Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
আইন-আদালত শিরোনাম শীর্ষ সংবাদ

সম্রাটের জামিন নামঞ্জুর, অভিযোগ গঠন শুনানি ৩০ নভেম্বর

কর্পোরেট সংবাদ ডেস্ক : রাজধানীর রমনা থানায় অস্ত্র ও মাদক আইনে করা দুটি মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র আমলে নিয়েছেন আদালত। এ সময় জামিন নামঞ্জুর করে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য ৩০ নভেম্বর দিন ধার্য করা হয়।

মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) সকাল ১০টায় সম্রাটকে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তাকে নেওয়া হয় আদালতের হাজতখানায়। আজ তার বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র মামলায় চার্জশিট গ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল।

গত বছর ৬ নভেম্বর ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সম্রাটের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দেন তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব ১-এর উপপরিদর্শক (এসআই) শেখর চন্দ্র মল্লিক। ৯ ডিসেম্বর মাদক মামলায় সম্রাট ও আরমানের বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব ১-এর এসআই আবদুল হালিম।

এর ১ মাস আগে ৬ অক্টোবর সম্রাট ও তার এক সহযোগী যুবলীগের সহসভাপতি এনামুল হক আরমানকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে র‌্যাব সম্রাটকে নিয়ে তার কাকরাইলের কার্যালয়ে অভিযান চালায়। অভিযানে সম্রাটের কার্যালয়ে ক্যাঙ্গারুর দুটি চামড়া, মাদকদ্রব্য ও অস্ত্র পাওয়া যায়।

এদিকে সম্রাটকে আনার খবরে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত এলাকায় তার অনুসারী নেতাকর্মীতে ভরে যায়। তারা সম্রাটের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে সমাবেশ করছে। নেতাকর্মীদের হাতে বিভিন্নধরনের প্ল্যাকার্ড দেখা গেছে। এ ছাড়া আদালত প্রাঙ্গণে সম্রাট ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি সংযুক্ত পোস্টার সাঁটানো হয়েছে। সম্রাটের মুক্তির জন্য নেতাকর্মীদের স্লোগান দিতেও শোনা গেছে।

এর আগেও গত বছর ১৫ অক্টোবর বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে সম্রাটকে আদালতে হাজির করার পর সিএমএম আদালতের সামনে অবস্থান নিয়েছিলেন যুবলীগের নেতাকর্মীরা। সেবারও তারা সম্রাটের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে স্লোগান দেন। যুবলীগের নেতাকর্মীরা ‘মুক্তি চাই, মুক্তি চাই সম্রাট ভাইয়ের মুক্তি চাই’, ‘রাজপথের সম্রাটের নিঃশর্ত মুক্তি চাই’—এমন নানা স্লোগান দেন। পরে তাদের গেটের বাইরে রেখে গেট আটকে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, বিভিন্ন স্পোর্টস ক্লাবের আড়ালে ক্যাসিনো ব্যবসা চালানোর অভিযোগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে অভিযান শুরু করে র‌্যাব। ওই দিনই গ্রেফতার করা হয় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে। এর দুদিন পর গ্রেফতার করা হয় যুবলীগ নেতা জি কে শামীমকে। অভিযানের প্রথম দিন থেকেই আলোচনায় আসে সম্রাটের নাম। গত ২৩ সেপ্টেম্বর অন্যদের সঙ্গে সম্রাটের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেওয়াসহ ব্যাংক হিসাব তলব করা হয়। গত ৬ অক্টোবর ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এজাহারে আরও বলা হয়েছে, র‌্যাবের একটি দল জানতে পারে, সম্রাট গ্রেফতারের ভয়ে কুমিল্লা সীমান্ত দিয়ে প্রতিবেশী ভারতে পালিয়ে যাওয়ার জন্য কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম এলাকায় লুকিয়ে আছে। এই সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সরওয়ার আলম ও নিজাম উদ্দিন আহম্মেদের নেতৃত্বে একটি দল চৌদ্দগ্রামের আলকরা গ্রামের কঞ্জুশ্রীপুর গ্রামের মনির চৌধুরীর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে সম্রাট ও আরমানকে গ্রেফতার করে। আরমানকে মাদক সেবনরত অবস্থায় পাওয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাকে তাৎক্ষণিক ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। আর সম্রাটের কাকরাইলের কার্যালয়ে ক্যাঙ্গারুর চামড়া পাওয়ায় তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।


আরো খবর »

মোহাম্মদপুরে বিহারী পট্টিতে ভয়াবহ আগুন, নিয়ন্ত্রণে ১০ ইউনিট

উজ্জ্বল

দেশে করোনায় আরও ৩২ জনের মৃত্যু

উজ্জ্বল

করোনা পরিস্থিতি খারাপ হলে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে: ওবায়দুল কাদের

উজ্জ্বল