31 C
Dhaka
সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
Latest BD News – Corporate Sangbad | Online Bangla NewsPaper BD
শিরোনাম শেয়ার বাজার

আজ থেকে স্পট মার্কেটে ম্যারিকো বাংলাদেশ লিমিটেড

ম্যারিকো

শেয়ারবাজার ডেস্ক: পবিত্র ঈদুল আজহার ছুটির কারণে টানা ৯ দিন বন্ধ থাকার পর আজ রোববার (১৮ আগস্ট) পুঁজিবাজারে লেনদেন শুরু। প্রথম দুই কার্যদিবস অর্থাৎ ১৮ ও ১৯ আগস্ট ম্যারিকো বাংলাদেশ লিমিটেডের শেয়ার লেনদেন কেবল স্পট মার্কেটে সম্পন্ন হবে। আগামী ২০ আগস্ট অন্তর্বর্তী লভ্যাংশ-সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট থাকায় সেদিন কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন বন্ধ থাকবে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ম্যারিকো বাংলাদেশ বিনিয়োগকারীদের জন্য ২৫০ শতাংশ অন্তর্বর্তী নগদ লভ্যাংশ সুপারিশ করেছে। ১ এপ্রিল শুরু হওয়া কোম্পানির চলতি হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনার পর এ লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়েছে।

প্রথম প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন ১৯) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৬ টাকা ৯৫ পয়সা, আগের হিসাব বছরের একই সময়ে যা ছিল ১৭ টাকা ৬২ পয়সা। এ হিসাবে প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ৯ টাকা ৩৩ পয়সা বা ৫২ দশমিক ৯৫ শতাংশ। ৩০ জুন কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৬৬ টাকা ৮৫ পয়সা।

সম্প্রতি গাজীপুরের মৌচাক ও শিরিরচালায় অবস্থিত দুটি কারখানার সক্ষমতা বাড়াতে ২৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা বিনিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে ম্যারিকো বাংলাদেশ। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে কোম্পানিটির পর্ষদে এ বিনিয়োগ পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। সম্প্রতি কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) শেয়ারহোল্ডাররা বিনিয়োগ পরিকল্পনার বিষয়টিতে অনুমোদন দেন।

৩১ মার্চ ২০১৯ সমাপ্ত হিসাব বছরে ম্যারিকো বাংলাদেশ শেয়ারহোল্ডারদের মোট ৬৫০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। এর মধ্যে ৬০০ শতাংশ অন্তর্বর্তী নগদ লভ্যাংশ আকারে বিতরণ করা হয়। বাকি ৫০ শতাংশ দেয়া হয় চূড়ান্ত নগদ লভ্যাংশ আকারে। সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির ইপিএস হয় ৬৪ টাকা ২৩ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৫২ টাকা ১৫ পয়সা। ৩১ মার্চ এনএভিপিএস দাঁড়ায় ৪১ টাকা ৩৪ পয়সা, এক বছর আগে যা ছিল ৪৭ টাকা ৩৮ পয়সা।

৩১ মার্চ ২০১৮ সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য মোট ৬০০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় ম্যারিকো। এছাড়া ২০১৭ হিসাব বছরে ৫০০ শতাংশ ও ২০১৬ হিসাব বছরে ৪৫০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ পেয়েছিলেন কোম্পানিটির শেয়ারহোল্ডাররা।

মুম্বাইভিত্তিক এফএমসিজি কোম্পানি ম্যারিকো ১৯৯৯ সালে বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করে। ২০০৯ সালে এটি শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ৪০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে এর পরিশোধিত মূলধন ৩১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। রিজার্ভে রয়েছে ৯২ কোটি ৩২ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট শেয়ারের ৯০ শতাংশই রয়েছে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে। এছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ২ দশমিক ৩৭ শতাংশ, বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কাছে ৬ দশমিক ৭৯ ও বাকি দশমিক ৮৪ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে।

আরও পড়ুন: ১৩ কোম্পানি প্রান্তিক প্রতিবেদন প্রকাশ

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

আরো খবর »

রাজবাড়ীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত নিহত

*

আজ থেকে স্পট মার্কেটে আরএসআরএম স্টিল

*

পুঁজিবাজার নিয়ে অর্থমন্ত্রীর বৈঠক আজ

*